কাতার প্রবাসীদের জন্য সতর্কতা


মুহাম্মদ নজরুল ইসলামঃঃ আপনাকে মনে রাখতে হবে যে,
১. আপনার পাসপোর্ট নম্বর এবং পাসপোর্টের মেয়াদ শেষ হওয়া তারিখ।
২. আপনার আইডি নম্বর এবং আইডির মেয়াদ শেষ হওয়া তারিখ।
৩. আপনার জন্ম তারিখ তারিখ।
৪. আপনার পোষ্ট বক্স নম্বর।
৫. আপনার মোবাইল নম্বর।
৬. আপনার টেলিফোন নম্বর।
৭. আপনার ব্যাংক একাউন্ট নম্বর।
৮. আপনার ই-মেইল, ব্যাংক একাউন্ট ইত্যাদির পাসওয়ার্ড।

উপরের বিষয় গুলো আপনার একান্ত ব্যক্তিগত বিষয়, যা অন্য কারো সাথে শেয়ার করার বিষয় নয়।
উপরের বিষয় গুলোর ব্যাপারে কাতারের ব্যাংক সমূহ বার বার আপনাকে ম্যাসেজ দিয়ে সতর্ক করে যে, এসব বিষয় আপনাকে কখনো প্রশ্ন করা হবেনা।

কিন্তু আমরা এই সব বিষয় ইচ্ছা-অনিচ্ছায় বা অসতর্কতায় অন্যের সাথে শেয়ার করে ফেলি। বিশেষ করে কখনো দেখা যায় যে, আপনার কাছে ফোন আসলো। বলা হলোঃ অমুক অফিস থেকে আপনাকে ফোন করা হচ্ছে। আপনাকে বিভিন্ন তথ্য জিজ্ঞেস করা হলো। আপনি হুড়হুড় করে সব বলে দিলেন। পরের দিন আপনার ব্যাংক একাউন্ট  থেকে বড় অংকের রিয়াল গায়েব। 

ইদানিং টেলিফোনে বা বিভিন্ন বাসায় বাসায় গিয়ে একদল লোক বলছে যে, তারা কাতার সরকারের পরিসংখ্যান মন্ত্রনালয় থেকে এসেছে। সরকারের একটি সার্ভে চলছে। তাই তারা আপনার অথবা আপনার পরিবার সম্পর্কে নানাবিধ তথ্য চাচ্ছে।

সকলকে সতর্ক করে জানাচ্ছি যে, কাতারে এই ধরণের কোন সার্ভে চলছেনা। যদি কেউ আপনাকে এই ধরণের প্রশ্ন করে, তাহলে আপনি তথ্য প্রদান থেকে বিরত থাকবেন এবং ওদেরকে পুলিশে ধরিয়ে দেবেন। 

আরেকটা প্রাসংগিক বিষয় হচ্ছে আইডি, পাসপোর্ট বা ড্রাইভিং লাইসেন্সের ছবি সোসাল মিডিয়াতে শেয়ার করা। অনেকেই দেখা যায় যে, তিনি নতুন ড্রাইভিং লাইসেন্স নিয়েছেন। খুশীতে আটখানা হয়ে তিনি লাইসেন্সের কপিটি ফেইসবুকে শেয়ার করে দোয়া চাইলেন। কিন্তু তিনি জানেনা যে, তিনি তার গোপন কিছু তথ্য বাজারে ছেড়ে দিলেন। ইন্টারন্যাশনাল মাফিয়া চক্র, যারা বিভিন্ন ধরণের হ্যাকিংএর মাধ্যমে কোটি কোটি ডলার হাতিয়ে নেয়। তারা আপনাকে ২০ বছর নজরে রাখবে। আপনি নতুন ড্রাইভিং লাইসেন্স নেয়ার পর আপনি গাড়ি নিলেন। এর পর সেই গাড়ি বদলিয়ে নতুন গাড়ী। ১০ বা ১৫ বছর পর সেই আপনি ল্যান্ড ক্রোজার বা মার্সিটিজ চালাচ্ছেন। এর মানে ১৫ বছর আগের আপনি আর ১৫ বছর পরের আপনির মাঝে বিশাল ফরাক। ওরা তখন আপনার ব্যাংক একাউন্ট হ্যাংক করবে ১৫ বছর আগে শেয়ার করা ড্রাইভিং লাইসেন্সে প্রদর্শিত আইডি নম্বর ব্যবহার করে। বিধায় সব কিছু সোসাল মিডিয়াতে শেয়ার করতে হবে এই মানসিকতা ত্যাগ করুন। নিজের নিরাপত্তার জন্য বিষয়টি খুবই দরকারী।


No comments

Theme images by luoman. Powered by Blogger.